The first & the only named organization of the world

জাহাঙ্গীর সার্কেল একটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক, কল্যাণমুখী, সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করবে। মোগল সম্রাট ‘জাহাঙ্গীর’ এর নামের সাথে মিল রেখে চার’শ বছরের ইতিহাস খ্যাত ‘জাহাঙ্গীর’ নামের সমমনা সবাইকে নিয়ে বন্ধুত্বের রঙিন স্বপ্ন-আর দল, মত, শ্রেণী, পেশা নির্বিশেষে ভালো কিছু করার লক্ষে নিজেদের মধ্যে পারস্পরিক পরিচয়, হৃদ্যতার সেতুবন্ধন গড়ে তোলার জন্য ‘জাহাঙ্গগীর সার্কেল’ গঠন করা হয়েছে। ‘বড় কিছু ভাবতে হবে’ স্লোগানের ভিত্তিতে সংগঠনটি ব্যতিক্রমী এ কারণে পৃথিবীতে এক নামে ব্যক্তিদের কোন সংগঠন নেই- এটি প্রথম ও একমাত্র বিধায় ‘জাহাঙ্গীর’ রা একত্রিত হয়ে নিজেদের পাশাপাশি মানুষ, সমাজ ও দেশের কল্যাণে আসুন, কিছু করতে চেষ্টা করি।

লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

১. ‘জাহাঙ্গীর, নামের সমমনা, সৃজনশীল, সৎ, চরিত্রবান ও কর্মঠদের একত্রিত করা।
২. দেশ-বিদেশে নামের মাঝে ‘জাহাঙ্গীর’দের পারস্পরিক ঐক্যস্থাপন, সৌহাদ্য, সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্ববোধ জাগরণ করা।
৩. ‘জাহাঙ্গীর’ নামের সবার ভালোকাজে সদিচ্ছা, আন্তরিকতা ও সেবার মনোভাব গড়ে তোলা এবং জনগণের প্রতি দায়িত্ব, কর্তব্য সচেতনতামূলক কর্মসূচী গ্রহণ করা। এক কথায় দেশে ও দশের গঠনমূলক কাজে আত্মনিয়োগ করা।
৪. দুর্ঘটনা, অসুখ, মৃত্যু ইত্যাদি অনিবার্য ও আকস্মিক আপদে বিপদে ‘জাহাঙ্গীর’ ও তাদের পরিবারবর্গের জন্য প্রয়োজনীয় সাহায্য ও সহযোগিতা প্রদানের ব্যবস্থা করা।
৫. ‘জাহাঙ্গীর’ (পরবর্তী পর্যায়ে তাদের পরিবারবর্গ) (গরীব ও অসহায়) বিবাহ, চিকিৎসা, ঔষধপত্র ও হাসপাতালে ভর্তি ও অন্যান্য বিষয়ে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা।
৬.‘জাহাঙ্গীর’ (পরবর্তী পর্যায়ে তাদের পরিবারবর্গ) চাকরি বা যে কোন জীবিকায় প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সুযোগ পায় তার জন্য যথাসম্ভব সহায়তা করা।
৭. ‘জাহাঙ্গীরদের’ মানসিক উৎকর্ষ সাধন ও চিত্রবিনোদনার্থে ক্রীড়া, সাহিত্য ও সংস্কৃতি অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করা। এছাড়াও ‘জাহাঙ্গীর’ বা তাদের পরিবারবর্গের মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের যথাসাধ্য আর্থিক ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সাহায্যে সহযোগিতা করা।
৮. ছাত্র বৃত্তি, পাঠাগার, কারিগরি ও শিক্ষামূলক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা।
৯. বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠান ও সরকারের সাথে জাহাঙ্গীর সার্কেল উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়নের সাহায্য ও সহযোগিতা এবং প্রয়োজনে যৌথভাবে কাজ করা।
১০. কর্মসংস্থান প্রকল্প ও কল্যাণমূলক কাজের জন্য একটি বিশেষ তহবিল গঠন করা।
১১. সমাজের উন্নতি কল্পে সর্বপ্রকার নতুন নতুন সৃজনশীল কর্মকান্ড পরিচালনা করা।
১২. জাহাঙ্গীর সার্কেলের ‘পরিচয়পত্র’ প্রদর্শন করে দেশ-বিদেশে হোটেল, মোটেল, ক্লিনিক, হাসপাতাল, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর, ফার্মেসী ইত্যাদিতে নির্ধারিত কমিশনে থাকা, কেনাকাটার ব্যবস্থা করা।
১৩. ‘জাহাঙ্গীর’দের জন্য স্বল্প ব্যয় ঢাকাসহ বিভাগীয় শহরে নিজস্ব রেষ্টহাউজের ব্যবস্থা করা।
১৪. আবাসন, পরিবহন, প্রযোজনা, প্রকাশনা খাতে বিনিয়োগ করা।
১৫. জাহাঙ্গীর সার্কেলের পক্ষ থেকে বৃদ্ধনিবাস, এতিমখানা, ক্লিনিক, হাসপাতাল, মসজিদ, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নির্মাণ বা সাধ্য মতো সাহায্য সহযোগিতা প্রদান করা।
জাহাঙ্গীর সার্কেল একটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক, কল্যাণমুখী, সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করবে। মোগল সম্রাট ‘জাহাঙ্গীর’ এর নামের সাথে মিল রেখে চার’শ বছরের ইতিহাস খ্যাত ‘জাহাঙ্গীর’ নামের সমমনা সবাইকে নিয়ে বন্ধুত্বের রঙিন স্বপ্ন-আর দল, মত, শ্রেণী, পেশা নির্বিশেষে ভালো কিছু করার লক্ষে নিজেদের মধ্যে পারস্পরিক পরিচয়, হৃদ্যতার সেতুবন্ধন গড়ে তোলার জন্য ‘জাহাঙ্গগীর সার্কেল’ গঠন করা হয়েছে। ‘বড় কিছু ভাবতে হবে’ স্লোগানের ভিত্তিতে সংগঠনটি ব্যতিক্রমী এ কারণে পৃথিবীতে এক নামে ব্যক্তিদের কোন সংগঠন নেই- এটি প্রথম ও একমাত্র বিধায় ‘জাহাঙ্গীর’ রা একত্রিত হয়ে নিজেদের পাশাপাশি মানুষ, সমাজ ও দেশের কল্যাণে আসুন, কিছু করতে চেষ্টা করি।

Flag Counter

Design & Developed By : Soft Host IT